শিক্ষা আইন দ্রুত মন্ত্রিপরিষদে পাঠানো হবে: শিক্ষামন্ত্রীবিধিনিষেধ বাড়বে কিনা পরিস্থিতি দেখে সিদ্ধান্ত : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীজাতিসংঘে ভোটাধিকার ফিরে পাচ্ছে ইরানপিএসসির সব পরীক্ষায় অংশ নিতে লাগবে টিকার সনদঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস আজ
No icon

ঢাবির শতবর্ষ পূর্তি উৎসবের উদ্বোধন আজ

অপেক্ষা পাঁচ মাস ধরে চলছে। ১ জুলাই দিনটাই কথা ছিল উৎসবে মুখরিত হওয়ার। হয়নি। করোনাভাইরাসের অতিমারি বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল। ভালো সময়ের অপেক্ষায় চার মাস পিছিয়ে দিন ঠিক করা হয় ১ নভেম্বর। তবুও পরিস্থিতি সন্তোষজনক না হওয়ায় অপেক্ষা দীর্ঘায়িত হয় আরও এক মাস। অবশেষে আজ ১ ডিসেম্বর শতবর্ষের উৎসবে মাতবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।এরই মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় সেজেছে নানা রঙে। ভবনে ভবনে দৃষ্টিনন্দন আলোকসজ্জা। উপাচার্য ভবন, কার্জন হল, কলাভবন, গুরুত্বপূর্ণ সব স্থাপনা, অভ্যন্তরীণ সড়ক- কোনোখানেই কমতি নেই উৎসবের সাজের। উৎসব বললে কিছুটা কম বলা হবে। কারণ এ এক মহা উৎসব। প্রাচ্যের অক্সফোর্ডখ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ পূরণের উৎসব। গত ১ জুলাই শতবর্ষ পূরণ হলেও করোনার কারণে এতদিন আটকে ছিল উদযাপন।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এমন সময় শতবর্ষ পূরণ করছে, যখন দেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী। তাই উৎসবে যোগ হয়েছে বাড়তি রং। বর্ণাঢ্য ও জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনে আজ উৎসবের উদ্বোধন করা হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে। রাষ্ট্রপতি ও আচার্য মোঃ আবদুল হামিদ প্রধান অতিথি হিসেবে উৎসবের উদ্বোধন করবেন। ভুটানের প্রধানমন্ত্রী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাই লোটে শেরিং অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি শুভেচ্ছা বক্তব্য দেবেন। সম্মাননীয় অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।


অনুষ্ঠানের শুরুতে শতবর্ষের তথ্যচিত্র প্রদর্শন এবং থিম সং পরিবেশন করা হবে। এরপর রাষ্ট্রপতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি ও মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে প্রকাশিত গ্রন্থ ও ওয়েবসাইট উদ্বোধন করবেন।উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এমপি, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ এবং ঢাবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ. কে. আজাদ। কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ রাষ্ট্রপতি ও আচার্যকে বিশেষ স্যুভেনির প্রদান করবেন।উৎসবের উদ্বোধনী দিন এবং ২, ৩, ৪ ও ১২ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে বিকেল ৪টায় আলোচনা সভা এবং সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় খ্যাতিমান শিল্পীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগ, থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগ এবং নৃত্যকলা বিভাগের শিল্পী ও অ্যালামনাইরা সাংস্কৃৃতিক পরিবেশনায় অংশগ্রহণ করবেন।উদ্বোধনী দিন বিকেলে ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনা পর্বে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, ডাকসুর সাবেক সহসভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, দি ডেইলি অবজারভারের সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরী এবং বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ হুমায়ুন আখতার অংশগ্রহণ করবেন। আলোচনা সভায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক. ড. সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় সম্মানীয় অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন।