রাজধানীতে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ দুই এলাকাবিডিবিএলের ২৫ কোটি টাকা আত্মসাৎসারাদেশে আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারেসবার সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জঅরাজগত সৃষ্টির চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা : আইনমন্ত্রী
No icon

অনিশ্চয়তায় শুরু হচ্ছে টিকার দ্বিতীয় ডোজ

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে কেনা ও উপহার মিলে এ পর্যন্ত দেশে করোনাভাইরাসের টিকা এসেছে এক কোটি দুই লাখ ডোজ। এর মধ্যে গতকাল বুধবার পর্যন্ত সারাদেশে ৫৫ লাখ ৬৮ হাজার ৭০৩ জন প্রথম ডোজ নিয়েছেন। সমসংখ্যক মানুষকে দ্বিতীয় ডোজ দিতে হবে। কিন্তু বর্তমানে সরকারের হাতে মজুদ আছে ৪৬ লাখ ৩১ হাজার ২৯৭ ডোজ। ঘাটতি ৯ লাখ ৩৭ হাজার ৪০৬ ডোজ। এর মধ্যেই আবার ভারত সরকার রপ্তানি স্থগিত করায় টিকা পাওয়া নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে অনিশ্চয়তা। এমন পরিস্থিতিতেই আজ বৃহস্পতিবার শুরু হচ্ছে দ্বিতীয় ডোজের টিকাদান কার্যক্রম। একই সঙ্গে প্রথম ডোজের টিকাদান কর্মসূচিও অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়ার লক্ষ্যে গতকাল বুধবার বিকেলের মধ্যে সারাদেশে টিকা পৌঁছে গেছে। গত ৭ ফেব্রুয়ারি টিকাদান কর্মসূচির প্রথম দিন যারা টিকা নিয়েছিলেন, আজ তারা সবাই দ্বিতীয় ডোজের টিকা পাবেন। তবে অনেকে বলেছেন, ভারত থেকে সময়মতো টিকা না এলে প্রথম ডোজ নেওয়া মানুষ বিপদে পড়বে। সুতরাং সরকারের উচিত প্রথম ডোজ বন্ধ রেখে দ্বিতীয় ডোজ টিকাদান কার্যক্রম শুরু করা। আবার কেউ কেউ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী টিকাদান কর্মসূচি অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি ভেবেচিন্তেই ওই ঘোষণা দিয়েছেন। টিকা পাওয়া নিয়ে কোনো অনিশ্চয়তা নেই। নির্ধারিত সময়েই টিকা চলে আসবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, কেনা টিকার ৩০ লাখ ডোজ এপ্রিলের মধ্যে সরবরাহের জন্য ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে আশ্বস্ত করা হয়েছে।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই ওই টিকা পৌঁছাবে বলে আশা করা যায়। ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে নির্ধারিত সময়ে টিকা না এলে পরিকল্পনা কী হবে কিংবা বিকল্প কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে মহাপরিচালক বলেন, টিকার বাংলাদেশে সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা হয়েছে। তারাও টিকা পাওয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত করেছে। আমরা তাদের আশ্বাসে আস্থা রাখতে চাই। এর পরও টিকা না এলে প্রথম ডোজ দেওয়া বন্ধ রাখতে হবে। তখন কেবল দ্বিতীয় ডোজ চলবে। একই সঙ্গে টিকার বিকল্প উৎস খোঁজা হচ্ছে। ইতোমধ্যে চীন, রাশিয়া ও জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকা কেনার জন্য একাধিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। সুতরাং টিকা নিয়ে যে জটিলতা তৈরি হয়েছে, এটি সাময়িক। যে কারণে অনিশ্চয়তা:সেরাম ইনস্টিটিউট উৎপাদিত অক্সফোর্ডের টিকার রপ্তানি গত ২৪ মার্চ সাময়িকভাবে স্থগিতের ঘোষণা দেয় ভারত সরকার। ওই ঘোষণায় বাংলাদেশও টিকা পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়ে যায়। আন্তর্জাতিক একাধিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারত সরকারের এই সিদ্ধান্তের ফলে আগামী এপ্রিলের শেষ পর্যন্ত টিকা রপ্তানি বিলম্বিত হতে পারে। ভারতের রপ্তানি স্থগিতের সিদ্ধান্তের কারণে ১৮০টি দেশ টিকা পাচ্ছে না।