তিনদিনেও রিমান্ডে নেয়া যায়নি প্রদীপ-লিয়াকতকেএবার রেডিওতে প্রাথমিকের পাঠদান সম্প্রচারএ মৌসুমে আর বন্যা হবে নাহাসপাতালে ‘অভিযান’ চালানোর বিপক্ষে স্বাস্থ্যমন্ত্রীওসি প্রদীপ ও তার স্ত্রীর সম্পদের অনুসন্ধানে দুদক
No icon

পদ্মায় প্রচণ্ড স্রোতে ফেরি বন্ধ, আটকা শত শত যানবাহন

পদ্মায় অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধি ও প্রচণ্ড বেগে পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় দুর্ঘটনা এড়াতে শুক্রবার রাত থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বিআইডব্লিটিসি। ফলে ঈদ ঘরমুুখো যাত্রী ও শত শত যানবাহন আটকা পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে অনেক যাত্রী ঢাকায় ফিরে গেছেন, আবার কেউ বিকল্প রুটে নিজ নিজ গন্তব্যে রওনা হয়েছে। যেসব যাত্রীর ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই তারা শিমুলিয়া ঘাট এলাকায় অবস্থান করছেন। শনিবার ঈদের দিন সকালে ফেরি চলাচল শুরু হলে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট পাড়ি দিয়ে বাড়ি ফিরে যেতে চান তারা।প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে স্রোতের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ফেরিগুলো চলতে না পারা এবং লৌহজং চ্যানেল বন্ধ হয়ে পড়ায় রাতে বন্ধ থাকলেও দিনের বেলায় সীমিত আকারে চলে ফেরি। স্রোতের তীব্রতায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ১৭ কিলোমিটার দূরের ভাটিতে চলে যায় যানবাহনসহ ২টি ফেরি। পরে ফেরি দুটি উদ্ধার করে বিআইডব্লিউটিসি।

সর্বশেষ ১১ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ৫টি ফেরি দিয়ে সীমিত আকারে নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু হয়। কিন্তু লৌহজং টানিং চ্যানেল বন্ধ হয়ে পড়ায় ফেরিগুলো ৫ কিলোমিটার পূর্ব দিকে ভাটি এলাকা ঘুরে বিকল্প চ্যানেলে চলাচল করছিল। এছাড়া বিকল্প চ্যানেলেও নাব্যতা সঙ্কট দেখা দেওয়ায় রাতের বেলায় ফেরি চলাচল মারাত্বক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে। এই পরিস্থিতিতে দিনে সীমিত আকারে ফেরি চালু রাখলেও রাতে নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়।বিআইডব্লিউটিসি কর্মকর্তা সাফায়েত আহমেদ বলেন, প্রচণ্ড স্রোতের বিপরীতে প্রতিনিয়ত ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। বর্তমানে পদ্মায় প্রচণ্ড ঘূর্ণায়মান স্রোত প্রবাহিত হচ্ছে, যা ভয়ঙ্কর। তাই দুর্ঘটনা এড়াতে রাতে ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে। আটকে পড়া যাত্রী ও যানবাহনকে বিকল্প সড়কে চলাচল করতে বলা হয়েছে।