রাজধানীতে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ দুই এলাকাবিডিবিএলের ২৫ কোটি টাকা আত্মসাৎসারাদেশে আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারেসবার সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জঅরাজগত সৃষ্টির চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা : আইনমন্ত্রী
No icon

রোহিঙ্গাদের পাসপোর্টে সহায়তার অভিযোগে মেম্বার গ্রেপ্তার

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ৪নং কাদরা ইউনিয়ন পরিষদের জন্মনিবন্ধন ও নাগরিক সনদ নিয়ে ৩ রোহিঙ্গা যুবকের বাংলাদেশি পাসপোর্ট গ্রহণের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় এক ইউপি মেম্বারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার গভীর রাতে সেনবাগ থানা পুলিশ তাকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে।তার নাম আবদুল হাকিমকে (৩৭)। তিনি উপজেলার কাদরা ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ডের নির্বাচিত সদস্য ও জয় নগর গ্রামের মৃত আলী আক্কাছের ছেলে।সেনবাগ থানার ওসি আবদুল বাতেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মঙ্গলবার বিকালে নোয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করলে শুনানি শেষে আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।জানা গেছে, তিন রোহিঙ্গা যুবক মোহাম্মদ ইউসুফ, মোহাম্মদ মুছা ও মোহাম্মদ আবদুল আজিজ কক্সবাজারের উখিয়ার হাকিমপাড়া শরণার্থী শিবির থেকে সেনবাগে এসে কাদরা ইউপির জন্ম নিবন্ধন ও নাগরিক সনদপত্র দিয়ে ৬নং ওয়ার্ডের নজরপুর ও নিজ সেনবাগ গ্রামের ঠিকানা ব্যবহার করে নোয়াখালী আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে ২০১৮ সালের ২৪ ডিসেম্বর পাসপোর্ট সংগ্রহ করেন। এরপর ওই তিন রোহিঙ্গা যুবক চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হলে ঘটনাটি নিয়ে দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় আকবর শাহ থানার এসআই আশাদুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করলে পুলিশ আবদুল হাকিমকে গ্রেপ্তার করে।

কাদরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান বলেন, গ্রেপ্তার মেম্বার তার ইউনিয়নের নির্বাচিত সদস্য। তিনি, ২নং ওয়ার্ডের সদস্য আবু বক্কর ছিদ্দিক জসিম ও সাবের নামের এক ব্যক্তি সিন্ডিকেট করে দালালের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে জন্মসনদ ও নাগরিকত্ব সনদ দিয়েছিলেন। ওই সনদ দিয়ে রোহিঙ্গারা সেনবাগের কাদরা ইউনিয়নের ঠিকানা ব্যবহার করে নোয়াখালী আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে পাসপোর্ট গ্রহণ করেছিল। এই ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় পুলিশ সোমবার রাতে আবদুল হাকিম মেম্বারকে এবং ৩-৪ মাস আগে সাবের নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে। একই মামলায় কাদরা ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সদস্য আবুবকর ছিদ্দিক ওরফে জসিম মেম্বার পলাতক রয়েছেন।নোয়াখালী পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন বলেন, আবদুল হাকিমের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের একটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ছিল। ওই পরোয়ানা সেনবাগ থানায় আসলে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপোর্দ করে।