চুক্তির পরে ইউক্রেন থেকে গম রফতানি শুরুজন্মতারিখের প্রমাণ ছাড়া নিবন্ধন মিলবে নাইতালিতে বসবাসের অনুমতিতে বাংলাদেশিরা চতুর্থগত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২১৮প্রস্তাবেই বেড়ে গেল সয়াবিন তেলের দাম
No icon

বুস্টার ডোজে গতি নেই সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী

নানা উৎস থেকে করোনা টিকা সংগ্রহ করে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ প্রয়োগে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করে সরকার। তবে বুস্টার (তৃতীয়) ডোজ প্রয়োগে দেশ এখনও অনেকটাই পিছিয়ে। এখনও লক্ষ্যমাত্রার ৪৬ শতাংশ জনগোষ্ঠী বুস্টার ডোজ টিকার বাইরে। হাতে পর্যাপ্ত টিকা থাকলেও দ্রুত সময়ে বিপুলসংখ্যক জনগোষ্ঠীকে বুস্টার ডোজ দেওয়ার ব্যাপারে সরকারের পরিকল্পনা এখনও দৃশমান নয়।করোনা নিয়ন্ত্রণে জাতীয় কারিগরি কমিটি ও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনা ঠেকাতে স্বাস্থ্যবিধি মানার পাশাপাশি দ্রুত সময়ে ৭০ শতাংশ জনগোষ্ঠীকে বুস্টার ডোজের আওতায় আনতে হবে। অন্য দেশ এ পদ্ধতিতেই জোর দিচ্ছে বেশি।দেশে ফের করোনা ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যে গতকাল মঙ্গলবার টানা দ্বিতীয় দিন দুই হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছেন তিনজন। এ প্রেক্ষাপটে সরকার আবারও নো মাস্ক, নো সার্ভিস নীতি নিয়ে গতকাল সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে ছয় দফা আদেশ বাস্তবায়নের চিঠি দিয়েছে। দেশে করোনা সংক্রমণ এখন ১৫ শতাংশের ওপরে। যেভাবে সংক্রমণের হার বাড়ছে, তাতে আর কয়েক দিনেই দেশে করোনার চতুর্থ ঢেউ শুরু হবে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তারপরও টিকার বুস্টার ডোজের ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে কোনো রকম তোড়জোড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, গতকাল পর্যন্ত দেশে ১২ কোটি ৯ লাখের বেশি মানুষ করোনা টিকার এক ডোজ পেয়েছেন, যা দেশের মোট জনসংখ্যার ৭৫.৭৫ শতাংশ। আর টিকার দুই ডোজ পাওয়া নাগরিকের সংখ্যা ১১ কোটি ৯৩ লাখের বেশি, যা মোট জনগোষ্ঠীর ৭০.০৫ শতাংশ। বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে ২ কোটি ৮৯ লাখ ২৩ হাজার ১৬২টি, যা মোট জনগোষ্ঠীর২৪.২৪ শতাংশ। সে হিসাবে এখনও বুস্টার ডোজ পাননি ৪৬ শতাংশ মানুষ।স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি সরকার সারাদেশে টিকাদান কার্যক্রম শুরু করে। সে সময় জনসংখ্যার ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকার আওতায় আনার লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছিল। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনায় সেটি বদল করে এখন ৭০ শতাংশ করা হয়েছে।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দীর্ঘ তিন মাসের বেশি সময় করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক থাকায় টিকা নেওয়া ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে সবার মধ্যে অনীহা দেখা দেয়। সম্প্রতি যার প্রভাব পড়েছে টিকার বুস্টার ডোজ ক্যাম্পেইনে। সাত দিনে দেড় কোটি টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা থাকলেও মাত্র ৯৬ লাখ মানুষকে বুস্টার ডোজের আওতায় আনা সম্ভব হয়েছে।বুস্টার ডোজ নিয়ে এখনই বিশেষ কোনো পরিকল্পনা নেই বলে স্বীকার করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা ভ্যাকসিন ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব শামসুল হক। তিনি বলেন, সম্প্রতি আমরা একটি বড় ক্যাম্পেইন করেছি। এখন নতুন করে আরও একটি পরিকল্পনা তৈরি করেছি। কিছুদিন পর এ বিষয়ে আপনাদের জানানো হবে।