সিম বিক্রি করতে পারবে না গ্রামীণফোনআগামী জাতীয় নির্বাচন ইভিএমে না ব্যালটেআগেভাগেই পশুর হাট, ভোগান্তিতে স্থানীয়রাবুস্টার ডোজে গতি নেই সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখীআইএমএফ থেকে ঋণ নেওয়ার পরিকল্পনা করছে সরকার
No icon

কোরআনের আলোকে রিজিক লাভের উপায়

হালাল রিজিক উপার্জনে জাগতিক বৈধ সব উপায় অবলম্বনের পাশাপাশি খোদাভীতি, আল্লাহর ওপর আস্থা এবং তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতাসহ ক্ষমা প্রার্থনার মতো ইবাদত-বন্দেগি ধারাবাহিক চালিয়ে যেতে হবে। কারণ পবিত্র কোরআনে এসব আমলে রিজিক বৃদ্ধির কথা ঘোষিত হয়েছে।

খোদাভীতি : ইরশাদ হয়েছে, আর যে আল্লাহকে ভয় করে, আল্লাহ তার জন্য নিষ্কৃতির পথ করে দেবেন। আর তাকে তার ধারণাতীত জায়গা থেকে রিজিক দেবেন। (সুরা : তালাক, আয়াত : ২-৩)
আল্লাহর ওপর ভরসা : ইরশাদ হয়েছে, যে ব্যক্তি আল্লাহর ওপর ভরসা করে তার জন্য তিনিই যথেষ্ট। আল্লাহ তার কাজ পূর্ণ করবেন। আল্লাহ সব কিছুর জন্য একটি পরিমাণ স্থির করে রেখেছেন। (সুরা : তালাক,আয়াত : ৩)

কৃতজ্ঞতা প্রকাশ : ইরশাদ হয়েছে, যদি তোমরা শুকরিয়া আদায় করো, তবে আমি অবশ্যই তোমাদের আরো বাড়িয়ে দেব। আর যদি তোমরা অকৃতজ্ঞ হও, নিশ্চয় আমার আজাব বড়ই কঠিন। (সুরা : ইবরাহিম,আয়াত : ৭)

দান-সদকা করা : ইরশাদ হয়েছে, এমন কে আছে যে আল্লাহকে ঋণ দেবে, উত্তম ঋণ; অতঃপর আল্লাহ তাকে দ্বিগুণ-বহুগুণ বৃদ্ধি করে দেবেন। আল্লাহই সংকুচিত করেন এবং তিনিই প্রশস্ততা দান করেন এবং তাঁরই কাছে তোমরা সবাই ফিরে যাবে। (সুরা : বাকারা, আয়াত : ২৪৫)

ইস্তিগফার তথা ক্ষমা প্রার্থনা করা : ইরশাদ হয়েছে, অতঃপর (আমি নুহকে) বলেছি, তোমরা তোমাদের পালনকর্তার ক্ষমা প্রার্থনা করো। তিনি অত্যন্ত ক্ষমাশীল। তিনি তোমাদের ওপর অজস্র (রিজিক উৎপাদনে) বৃষ্টিধারা ছেড়ে দেবেন, তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি বাড়িয়ে দেবেন, তোমাদের জন্য উদ্যান স্থাপন করবেন এবং তোমাদের জন্য নদী-নালা প্রবাহিত করবেন। (সুরা : নুহ, আয়াত : ১০-১২)

আল্লাহ আমাদের উত্তম রিজিক অর্জনের পথে সব সংকীর্ণতা ও প্রতিবন্ধকতা দূর করে দিন।