শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত ৬ মন্ত্রণালয়ের বৈঠক সন্ধ্যায়পঞ্চম ধাপে ২৯ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ কালউৎকণ্ঠায় শিক্ষার্থীরা এখন ধৈর্যহারাস্কুল-কলেজ খোলার পরিবেশ পর্যালোচনা সভা শনিবারউন্নয়নশীল দেশের কাতারে বাংলাদেশ
No icon

বিদেশে যেতে পারবেন না স্বেচ্ছা ঋণখেলাপিরা

স্বেচ্ছা ঋণখেলাপিদের বিজনেস ক্লাসে বিদেশ ভ্রমণের নিষেধাজ্ঞা ছিল আগেই। এবার তা আরো কঠোর করে ব্যাংক কম্পানি আইনের সংশোধিত খসড়া তৈরি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। সংশোধিত খসড়া অনুযায়ী স্বেচ্ছা ঋণখেলাপিরা বিদেশে যেতে পারবেন না। এমনকি খেলাপি ঋণ থেকে অব্যাহতি পাওয়ার পর সর্বোচ্চ পাঁচ বছর পর্যন্ত কোনো ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালকও হতে পারবেন না বলে নতুন বিধান যুক্ত করা হয়েছে।নতুন খসড়ায় স্বেচ্ছা খেলাপিদের বাড়ি, গাড়ি, কম্পানি নিবন্ধন এবং সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে দাওয়াত না দেওয়া এবং কোনো সংগঠনে পদ না পাওয়ার নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব আগের মতোই বহাল রয়েছে। এর আগে ফিন্যান্স কম্পানি আইন সংশোধনের প্রাথমিক খসড়ায় স্বেচ্ছা ঋণখেলাপিদের বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞার কথা বলা হয়। দেশের আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো এই আইনে পরিচালিত হয়।ব্যাংক কম্পানি আইনের সংশোধিত খসড়ায় বলা হয়েছে, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো স্বেচ্ছা খেলাপিদের তালিকা বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠাবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কমিটি ওই তালিকা চূড়ান্ত করার ৩০ দিনের মধ্যে আপিল করতে পারবে এবং এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংকের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম বলেন,আইনে যা-ই থাকুক না কেন, তা বাস্তবায়ন কতটুকু হবে এ নিয়ে সংশয় থেকে যায়। কারণ ঋণখেলাপি নিরুৎসাহ করতে বিদ্যমান যে আইন রয়েছে, তা-ও তো ঠিকভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে না। আরেকটি বিষয় হচ্ছে, আইন হলেও ঋণখেলাপি স্বেচ্ছা না অনিচ্ছায়, এটি কিভাবে নির্ণয় করা হবে। কারণ অনেকেই ব্যবসা খারাপের অজুহাত দিয়ে খেলাপি হতে পারে। তবে সংশোধিত যে আইনটি হচ্ছে, তা বাস্তবায়ন করতে পারলে অবশ্যই স্বাগত। দেখার বিষয় কতটুকু এটি বাস্তবায়িত হয়।আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন ধারা আরো কঠোর করার পরামর্শ দিলেও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠনের মতামত ও সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে প্রাথমিক খসড়ার কিছু ধারা শিথিল করা হয়েছে। খসড়াটি চূড়ান্ত করে মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে।