মিরপুরের আগুনে দগ্ধ পারভিনের মৃত্যুতুরস্কে শক্তিশালী ভূমিকম্পে নিহত ১৪ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস, চীনে ৪১ জনের মৃত্যুচট্টগ্রামে আগুনে পুড়েছে দেড়শ বস্তিঘরদেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন খালেদা জিয়া
No icon

‘শাওমির মোবাইল মানেই ছোটখাটো বিস্ফোরক’

সারাদেশে থামছেই না শাওমির মোবাইলফোন বিস্ফোরণ। একের পর এক ঘটনা ঘটছে দেশজুড়ে। অথচ বিস্ফোরণের দিকটা বিবেচনায় না নিয়ে বাজার দাপিয়ে নিজেদের সাফাই গাইছে কোম্পানিটি। কাস্টমারের নিরাপত্তা নিয়ে মোটেই চিন্তিত নয় তারা। আগের একাধিক মোবাইল বিস্ফোরণের বিষয়ে তারা কাস্টমারের নিরাপত্তাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয় বললেও বাস্তবতা ভিন্ন। সবশেষ বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. বাকির হোসেনের বাসায় শাওমির ‘Xiaomi mi a1 মডেলের একটি মোবাইল হ্যান্ডসেট বিস্ফোরিত হয়েছে। পরে এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন,নামাজ পড়ে ঘুম ঘুম চোখে বিছানায়, হঠাৎ কোনোকিছু বিস্ফোরণ হওয়ার শব্দে লাফ দিয়ে পাশের রুমে গিয়ে যা দেখলাম!!! আরও বড় দুর্ঘটনা থেকে আল্লাহ বাঁচিয়েছেন। সুতরাং, মোবাইল মনে হয় ছোটখাটো বিস্ফোরক! শুক্রবার (৩০ আগস্ট) ভোরে চার্জ দেওয়া অবস্থায় মোবাইল ফোনটি বিস্ফোরিত হয়। শাওমির স্মার্টফোনে ফের বিস্ফোরণ তার এ স্ট্যাটাসটির সঙ্গে বিস্ফোরিত মোবাইলের ছবিও দিয়েছেন। সেখানে তার শুভাকাঙ্ক্ষীরা বিভিন্ন ধরনের কমেন্টস করেছেন। শাওমির মোবাইলের কোয়ালিটি নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন অনেকে। নাজমুন সেতু নামে একজনের এক প্রশ্নের উত্তরে ডা. বাকির হোসেনের ছেলে সাদমান বাকির সাহাব জানিয়েছেন, মোবাইলটি ঘটনার সময় চার্জে দেওয়া ছিল।

আবারও বিস্ফোরিত শাওমি হ্যান্ডসেট

একই সঙ্গে ওই স্ট্যাটাসের পরিপ্রেক্ষিতে অনেকেই মোবাইল ফোনটি কোন কোম্পানির তা জানতে চান। যার উত্তরে ডা. বাকির হোসেন লিখেছেন মোবাইল ফোনটি ‘Xiaomi mi a1’ মডেলের। যা তার ছেলের এবং চার্জে ছিল।