আ.লীগের আনন্দ মিছিল থেকে হারুনকে গুলি করা হয়: খসরু ঘাটতি বেড়েছে বৈদেশিক লেনদেনেজেরুজালেম ইস্যুতে ফিলিস্তিনের পক্ষে দাঁড়াল চীনচট্টগ্রামের সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন চৌধুরী লাইফ সাপোর্টে আর্জেন্টিনা বদলে গিয়েছে, জানালেন মেসি
No icon

এত টাকা মেসি কীভাবে খরচ করেন?

ফ্লয়েড মেওয়েদার আবার ফিরে এসেছেন বক্সিংয়ে। ফলে আগামী বছর বিশ্বের সবচেয়ে ধনী খেলোয়াড় কে হবেন, সেটা নিয়ে প্রশ্ন জাগছে। গত দুই বছর এই বক্সারের অনুপস্থিতিতে সে রাজত্ব বুঝে নিয়েছিলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। ফোর্বস ম্যাগাজিন অনুযায়ী, গত এক বছরে ৯৩ মিলিয়ন ডলার আয় করেছেন রোনালদো। আর তিনে থাকা মেসির আয় ৮০ মিলিয়ন। অবশ্য ক্লাব থেকে প্রাপ্ত বেতনের হিসাবে মেসিই এগিয়ে। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমের দাবি, রোনালদোর আয় সপ্তাহে ৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা। আর নতুন চুক্তিতে লিওনেল মেসির সাপ্তাহিক বেতন হবে ৫ লাখ পাউন্ড! বাংলাদেশি টাকায় ৫ কোটি ২৩ লাখের বেশি! সঙ্গে বোনাস তো আছেই। তো এই বিপুল অঙ্কের অর্থ নিয়ে কী করেন তারকারা? বিজনেস ইনসাইডার চেষ্টা করেছে সমর্থকদের সে কৌতূহল মেটানোর। মেসির আয়ের এক-তৃতীয়াংশ (২৭ মিলিয়ন ডলার) এসেছে তাঁর স্পনসরদের থেকে। জনপ্রিয় ম্যাসেজিং অ্যাপ উইচ্যাট এদেরই একটি। মেসির সবচেয়ে বড় স্পনসর অ্যাডিডাস। বার্ষিক ১০ মিলিয়ন ডলার চুক্তিতে মেসির সঙ্গে যুক্ত হয়েছে এই ক্রীড়াসামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। মেসির সবচেয়ে বড় স্পনসর অ্যাডিডাস। বার্ষিক ১০ মিলিয়ন ডলার চুক্তিতে মেসির সঙ্গে যুক্ত হয়েছে এই ক্রীড়াসামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। এসব তো আয়ের হিসাব। এ অর্থ ব্যয় করেন কোথায় মেসি? মেসি একটু নিভৃতচারী। ছুটির সময়টা পরিবারের সঙ্গে কাটাতেই পছন্দ করেন বেশি। তাই নয়নাভিরাম সব জায়গায় ঘুরে বেড়িয়ে আর সেসব ভ্রমণের জোগাড়যন্ত্রে মেসির খরচ হয় বেশি। এসব তো আয়ের হিসাব। এ অর্থ ব্যয় করেন কোথায় মেসি? মেসি একটু নিভৃতচারী। ছুটির সময়টা পরিবারের সঙ্গে কাটাতেই পছন্দ করেন বেশি। তাই নয়নাভিরাম সব জায়গায় ঘুরে বেড়িয়ে আর সেসব ভ্রমণের জোগাড়যন্ত্রে মেসির খরচ হয় বেশি। তবে শখ-আহ্লাদ মেসিরও আছে। মেসির সবচেয়ে বড় শখ গাড়িতে। রোনালদোর চেয়ে গোটা কয়েক কম হলেও মেসির চারচাকার বাহন কিন্তু কম নয়, ১৪টি! সব মিলিয়ে গাড়ির পেছনে ৮০ লাখ ডলার খরচ করেছেন মেসি। তাঁর সংগ্রহে আছে ২ লাখ ৪০ হাজার ডলারের মাজেরাতি এমসি স্ট্রাডল।

এ ছাড়া ফেরারি এফ-৪৩০ স্পাইডার এবং অডি আর৮ স্পাইডারের মতো গাড়িও আছে মেসির সংগ্রহে। ছুটি কাটাতে ভূমধ্যসাগরের ইবিজা দ্বীপকেই বারবার বেছে নেন মেসি। এখানে সময় কাটানোর সময় ৮৫ ফুট লম্বা একটি ইয়ট ভাড়া করেছিলেন গতবার। এর জন্য প্রতিদিন মাত্র ৭ হাজার ৮০০ ইউরো খরচ হয়েছিল তাঁর। অর্থাৎ দিনে ৭ লাখ ১৮ হাজার টাকা।

স্পেন ও আর্জেন্টিনা—দুই দেশেই বাড়ি কিনেছেন মেসি। বুয়েনেস এইরেসে ২০ লাখ ডলারের বাড়িটি কিনেছেন ২০০৯ সালে। আর বার্সেলোনায় এ বাড়িটি বানাতে মেসির খরচ হয়েছে ৭০ লাখ ডলার বা প্রায় ৫৬ কোটি টাকা।

মেসি নিজের আয়ের একটা বড় অংশ জনস্বার্থে ব্যয় করেন। তাঁর গড়া মেসি ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে বুয়েনেস এইরেসের অনগ্রসর শিশুদের সুস্বাস্থ্য ও শিক্ষা নিশ্চিত করার ব্যবস্থা করেন মেসি। তাঁর বিয়েতে আমন্ত্রিত অতিথিদের উপহার আনতে মানা করে মেসি ফাউন্ডেশনে দানের অনুরোধ জানিয়েছিলেন এই ফুটবলার। মোজাম্বিকের প্রায় ১৫ হাজার শিশু পুষ্টিহীনতায় ভুগছে। তাদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে মেসি ফাউন্ডেশন। ছবি ও সূত্র: বিজনেস ইনসাইডার

আরো পড়ুন