নুসরাতকে নিচ থেকে ছাদে নিয়ে হাত বাঁধে শম্পানুসরাত হত্যায় পুলিশের গাফিলতি থাকলে ব্যবস্থা নেয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীভারতে প্রকাশ পাচ্ছে আফ্রিদির আত্মজীবনীমূলক বইস্কুলে সন্তানকে নিরাপদ রাখতে কী করবেন?নুসরাত হত্যায় মানি লন্ডারিং সংশ্লিষ্টতার অনুসন্ধানে সিআইডি
No icon

বর সেজে যেভাবে এলো মোস্তাফিজ

অবশেষে অপেক্ষার প্রহর শেষ। সময় তখন দুপুর আড়াইটা। প্রাইভেটকার থেকে ঘিয়া রঙের শেরওয়ানি পরা স্বপ্নের বর নামলেন। চোখেমুখে হাসির বন্যা। যেন টাইগারদের ক্রিকেট জয়ের আরেক উল্লাস। যাত্রীবহর নিয়ে সবার মাঝে নেমে এলেন। বরের নাম মোস্তাফিজুর রহমান। দ্য ফিজ খ্যাত কাটার মাস্টার মোস্তাফিজের বিয়ে বলে কথা। কনের বাড়িতে আগে থেকেই চলছিল সাজ সাজ রব। আত্মীয়স্বজনের কমতি ছিল না। বাদ পড়েনি মোস্তাফিজের বাড়িও। সেখানেও ক্ষীর খেলেন কাটার মাস্টার। বরযাত্রী বহরের সঙ্গে সঙ্গে মোস্তাফিজ তার বাবা আবুল কাসেম আর মা মাহমুদা খাতুনকে নিয়েই পৌঁছালেন কনে সুমাইয়া পারভিন শিমুর বাড়িতে। বরকে সোজা নিয়ে যাওয়া হলো বাড়ির দোতলায়। সেখানে একটি কক্ষে অপেক্ষমাণ সবাই। সময় তখন ৩টা ছুঁই ছুঁই। মোস্তাফিজের মাথায় উঠল টোপর। বিবাহ রেজিস্ট্রার দেবহাটার নোয়াপাড়ার কাজী আবুল বাসার তখনও অপেক্ষায়। অনুমতি নিয়ে অবশেষে কলেমা পড়ালেন মোস্তাফিজ-শিমু দম্পতিকে। রেজিস্ট্রি কাগজপত্রে স্বাক্ষর করালেন। সাক্ষী হলেন কাটার মাস্টারের বড় ভাই মাহফুজুর রহমান মিঠু। আর দুপক্ষের উকিল রবিউল ইসলাম ও আজিজুর রহমান।

পাঁচ লাখ এক টাকার দেনমোহরে বাঁধা পড়লেন মোস্তাফিজুর রহমান আর ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী সুমাইয়া পারভিন শিমু। তবে বিয়ের অনুষ্ঠান কোনো সাংবাদিক উপভোগ করতে পারেননি। পরিবারের লোকজন জানালেন একেবারে ঘরোয়া পরিবেশে স্বজনদের সঙ্গে নিয়ে প্রাথমিকভাবে শেষ করা হয়েছে এই বিয়ে। এরপর ধুমধাম করে অনুষ্ঠান হবে বিশ্বকাপের পর। তখন জানানো হবে সবাইকে।

মোস্তাফিজের স্বপ্নের রাণী তার মামাতো বোন শিমু। ২০১৮ সালে দেবহাটার সখিপুর খান বাহাদুর আহসানউল্লাহ কলেজ থেকে এ প্লাস পেয়ে এইচএসসি পাস করেন। এর আগে ২০১৬ সালে নলতা হাইস্কুল থেকে তিনি গোল্ডেন এ প্লাস পেয়ে পাস করেন এসএসসি।

বরের বাড়ি কালিগঞ্জের তারালি ইউনিয়নের তেতুলিয়া গ্রাম থেকে জনা চল্লিশেক বরযাত্রীর বহর এসেছিল মাইক্রো প্রাইভেট আর মোটরসাইকেলে। গন্তব্যস্থল দেবহাটা উপজেলার নোয়াপাড়া ইউনিয়নের হাদিপুর এলাকার জগন্নাথপুর গ্রাম। সেখানেই অপেক্ষায় ছিলে কনে শিমু। আনন্দঘন পরিবেশে সম্পন্ন হলো তাদের বিয়ে। এরপর মধ্যাহ্ণভোজে আপ্যায়িত হলেন আমন্ত্রিতরা।