অজ্ঞান করার উদ্দেশ্যে মাথায় আঘাত করা হয় ওয়াকিবেরওবায়দুল কাদের শঙ্কামুক্তবৈঠক শেষে যেসব কর্মসূচি দিল জাতীয় ঐক্যফ্রন্টবর সেজে যেভাবে এলো মোস্তাফিজমেননের গাড়িতে ধাক্কা দেয়া চালকের ‘লাইসেন্স নেই’
No icon

তামিমের রেকর্ড ধরে ফেললেন সৌম্য

৯২ বলে ৯৯ রান তুলে ফেলেন সৌম্য সরকার। অনন্য রেকর্ড হাতছানি দিয়ে ডাকছিল তাকে। মনে হচ্ছিল, রেকর্ডটি গড়েই ফেলবেন তিনি। কিন্তু না! একটু দেরি হয়ে গেল। তবে গড়তে না পারলেও রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলেছেন সৌম্য। রেকর্ড বুকে তামিম ইকবালের পাশে বসেছেন তিনি। টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড ছিল তামিম ইকবালের দখলে। ২০১০ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডসে স্মরণীয় সেই ইনিংসের পথে ৯৪ বলে সেঞ্চুরি করেন তিনি। এবার তাকে ধরে ফেললেন সৌম্য। তিনিও সেঞ্চুরি মেরেছেন সমান ৯৪ বলে। এখন ক্রিকেটের অভিজাত সংষ্করণে টাইগারদের হয়ে দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ডের মালিক যৌথভাবে এ দুজন। তামিমের কীর্তি ছোঁয়ার দিনে লম্বা ইনিংসের পথে ছিলেন সৌম্য। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হ্যামিল্টন টেস্টের চতুর্থ দিনে ৫১ বলে ৩৯ রান নিয়ে খেলতে নামেন তিনি। সূচনালগ্নেই বোল্টের এক ওভারে চার ও ছক্কা হাঁকিয়ে ৬০ বলে ফিফটি স্পর্শ করেন বাঁহাতি ব্যাটার। চোখধাঁধানো সব ক্রিকেটীয় (কাট, পুল, হুক, ড্রাইভ) ও উদ্ভাবনী শটে পরের হাফসেঞ্চুরি পূরণ করেন মাত্র ৩৪ বল।

সেঞ্চুরির পরও স্বচ্ছন্দে খেলেন সৌম্য। এগিয়ে যান লম্বা ইনিংসের পথে। তবে আচমকা খেই হারিয়ে বোল্টের শিকার হন তিনি। ফেরার আগে খেলেন ক্যারিয়ারসেরা ১৪৯ রানের বীরোচিত ইনিংস। ১৭১ বলে ২১ চার ও ৫ ছক্কায় এ ইনিংস সাজান বাঁহাতি টপঅর্ডার। এ পথে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে ২৩৫ রানের জুটি গড়েন সম্ভাবনাময়ী ও প্রতিশ্রুতিশীল এ ক্রিকেটার।

তামিম-সৌম্যর পর বাংলাদেশের হয়ে দ্রুততম সেঞ্চুরি মুমিনুল হকের। সেটিও কিউইদের বিপক্ষে। ২০১৩ সালে চট্টগ্রামে ৯৮ বলে তিন অংকের ম্যাজিক ফিগার স্পর্শ করেন তিনি।

টেস্টে দ্রুততম সেঞ্চুরির বিশ্বরেকর্ড ব্রেন্ডন ম্যাককালামের। ২০১৬ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাত্র ৫৪ বলে তিন অংক স্পর্শ করেন সাবেক নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক। ১০০ এর কম বলে রেকর্ড সাতবার সেঞ্চুরি করেছেন বীরেন্দ্র শেবাগ। অ্যাডাম গিলক্রিস্ট করেছেন ছয়বার। চারবার করে এ কৃতিত্ব দেখিয়েছেন ম্যাককালাম, ক্রিস গেইল ও ডেভিড ওয়ার্নার।