বর্জ্য অপসারণে কতটা প্রস্তুত ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন?ঈদের খুশি নেই, ছেলের কবরের পাশে বসে কাঁদছেন রিফাতের মানিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় প্রস্তুত শোলাকিয়াকোরবানির পশু জবাই ও মাংস প্রস্তুতে ২৫% খরচ বহন করবে ডিএনসিসিঈদের সকালে সর্বস্তরের জনগণের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন প্রধানমন্ত্রী
No icon

স্কুলের ভর্তির তথ্য যখন মরণের বড় ‍সূত্র: রেনু হত্যা

রাজধানীর বাড্ডার একটি স্কুলে সন্তানকে ভর্তির খোঁজখবর নিতে গিয়ে নির্মমভাবে মৃত্যু হয়েছে তসলিমা বেগম রেনুর (৪০)।গত শনিবার সকালের ওই ঘটনায় রেনুর বোনের ছেলে নাসির উদ্দিন বাদী হয়ে বাড্ডা থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন। মামলায় অজ্ঞাত ৪ থেকে ৫শ জনকে আসামি করা হয়েছে। মামলার তদন্ত চলছে। জড়িতদের শনাক্ত করে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে। এদিকে ময়নাতদন্ত শেষে রবিবার দুপুরে তাসলিমার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। পরে দাফনের জন্য স্বজনরা নিহতের লাশ লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার সোনাপুর গ্রামে নিয়ে গেছেন। রেনুকে গণপিটুনিতে হত্যার করার সেই ভিডিও ভাইরাল হয়ে গেছে। এতে দেখা যায়, রেনুকে কয়েকজন যুবক মারছে। বাকিরা দেখছে, কেউ কেউ কাছ থেকে মোবাইলে ভিডিও করছে। ৮-১০ মিনিট লাঠিপেটার পর আবার উপর্যুপরি লাথি দেয়া হয়। আধা ঘণ্টারও বেশি সময় গণপিটুনির পর শনিবার সকাল ১০টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে রেনু মারা যান।