অধ্যক্ষ সিরাজের পক্ষে আদালতে দাঁড়াননি কোনো আইনজীবীঢাকার ৮৪ শতাংশ বহুতল ভবনই ত্রুটিপূর্ণরাজস্ব কর্মকর্তা হিসেবে আউট সোর্সিংয়ে ১০ হাজার শিক্ষার্থী নিয়োগসুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা বেড়েছেবেশি দামে টিকিট বিক্রি : হানিফ এস আর ট্রাভেলসকে জরিমানা
No icon

পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে হাসপাতাল থেকে পালাল আসামি

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে পালিয়েছে ইদ্রিস মাতুব্বর (৪৫) নামে এক আসামি। মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে টয়লেটে যাওয়ার কথা বলে সে পালিয়ে যায়। মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী থানার ডাকাতি মামলার আসামি ইদ্রিসকে পেটে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গত ২ ফেব্রুয়ারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। এরপর থেকে হাসপাতালের ১০২ নম্বর ওয়ার্ডের বারান্দায় ২৬ নম্বর বিছানায় চিকিৎসাধীন ছিল সে। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ডাকাত সদস্য ইদ্রিসকে পুলিশের একজন নায়েক, একজন কনস্টেবল ও একজন আনসার সদস্য পাহারা দিচ্ছিলেন। এদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ইদ্রিস টয়লেটে যেতে চাইলে তাকে সেখানে নিয়ে যান আনসার সদস্য। এ সময় তিনি ওয়ার্ডের একটি চেয়ারে বসে ছিলেন। সেখানে পাহারারত পুলিশের দুই সদস্যও ছিলেন। দীর্ঘ সময় পরও আসামি ইদ্রিস টয়লেট থেকে বের না হওয়ায় দরজা ধাক্কাধাক্কি করলেও ভেতর থেকে খোলা হচ্ছিল না। শেষ পর্যন্ত টয়লেটের জানালা দিয়ে তাকে ভেতরে দেখা যায়নি। এর পরই শুরু হয় পুলিশের দৌড়ঝাঁপ।

ঢাকা মেডিকেল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া জানান, ঘটনা জানার পর ফাঁড়ি পুলিশ নিয়ে পুরো হাসপাতাল ও এর আশপাশের এলাকায় তল্লাশি চালানো হয়েছে। কিন্তু ডাকাত দলের ওই সদস্যকে পাওয়া যায়নি। পলাতক ইদ্রিসের বাড়ি শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার চিতরারচড় গ্রামে। তার বাবার নাম রহমান মাতুব্বর।

পুলিশ জানায়, ১ ফেব্রুয়ারি রাতে মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী এলাকার আউটশাহী গ্রামের গোলাম কবীর লাবু সিকদারের বাড়িতে ডাকাতির সময় গুলিবিদ্ধ হয় ইদ্রিস। পরে পুলিশ তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে।