অজ্ঞান করার উদ্দেশ্যে মাথায় আঘাত করা হয় ওয়াকিবেরওবায়দুল কাদের শঙ্কামুক্তবৈঠক শেষে যেসব কর্মসূচি দিল জাতীয় ঐক্যফ্রন্টবর সেজে যেভাবে এলো মোস্তাফিজমেননের গাড়িতে ধাক্কা দেয়া চালকের ‘লাইসেন্স নেই’
No icon

এখনও সচল ‘জনপ্রিয়’ বহু পর্নো-জুয়ার সাইট

সম্প্রতি দেশের নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলো ১৫০০ পর্নো ও অনলাইনে জুয়ার ওয়েবসাইট বন্ধের দাবি করলেও এখনো সচল রয়েছে ‘জনপ্রিয়’পর্নো-জুয়ার সাইট। বাংলাদেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের ‘জনপ্রিয়’ সাইটগুলোর মধ্যে ৬ ষষ্ঠ পর্নো ট্রিপল ফাইভ, এবং ২৩ তম লাইভ জেসমিন সাইটে এখনো ঢোকা যাচ্ছে। এ ছাড়াও বিশ্বের জনপ্রিয় ১০ পর্নো সাইটের ৩টি এখনো খোলা রয়েছে। সেগুলো হচ্ছে চ্যাটইউরবেট, ফ্লার্ট ফর ফ্রি এবং বোংগা ক্যামস। এ ছাড়াও বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় বেটিং সাইট বেটওয়ে ডটকম বাংলাদেশে এখনো খোলা রয়েছে। বিশ্বের জনপ্রিয় ১০ টি বেটিং সাইটের মধ্যে ৪টিতে অবাধেই ঢোকা যাচ্ছে। সেগুলো হচ্ছে উইলিয়াম হিল ডট কম (৩য়), ইন্টারটপস ডট ইইউ (৬ষ্ঠ), বেট অনলাইন ডট এজি (৭ম) এবং এইবিজিগ্লোবার ডট কম (১০ম)।

এ বিষয়ে সোমবার এক ফেসবুক পোস্টে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘এবার খুঁজে পেলাম ১৫ হাজার ৬৩৬টি পর্নো ও ২ হাজার ২৩৫টি জুয়ার সাইট। সাথে আছে টিকটক ও বিগো। সবগুলোতেই পড়ছে তালা। জয় বাংলা। আমার সহকর্মীদের অনেক ধন্যবাদ সহায়তার জন্য।’

যুব সমাজকে রক্ষার এ মিশনে মন্ত্রণালয়ের সহযোগী হিসেবে কাজ করছে বাংলাদেশ পুলিশের সব সাইবার ইউনিট, র‌্যাব, বিটিআরসি, ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টার (এনটিএমসি) ও আইসিটি মন্ত্রণালয়ের এ টু আই।

এর আগে ২০১৬ সালের ২৮ নভেম্বর সামাজিক অবক্ষয়ের জন্য দায়ী বেট থ্রি সিক্সটি ফাইভের মতো অনলাইনে বাজি ধরা, জুয়া ও পর্নোগ্রাফির প্রায় ৫০০ ওয়েবসাইট বন্ধ করা হয়েছিল। তবে এর কয়েকদিন পর থেকেই সাইটগুলো দেখা যাচ্ছিল।

এ বিষয়ে গতবছরের সেপ্টেম্বরে দেয়া সাক্ষাৎকারে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ২০১৮ সালের নভেম্বরে একটি প্রকল্পের অধীনে স্থায়ীভাবে সাইটগুলো বাংলাদেশে বন্ধ করা হবে। কোনো উপায়েই সেগুলো আর অ্যাক্সেস করা যাবে না।