ট্রাম্পের জয় চেয়েছিলাম : পুতিনষড়যন্ত্র চলছে চোখ-কান খোলা রাখবেন: নাসিম‘আমার মেয়েকে রাত ১টায় নিজের রুমে ডেকে নেয় চিকিৎসক’খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার বিষয়ে আদেশ ২৯ আগস্টগণতন্ত্র না থাকলে বিএনপি সমালোচনা করতে পারত না: কাদের
No icon

তামিমের ব্যাটে নিজেকে ছাড়িয়ে যেতে চান রুমানা

দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজকে সামনে রেখে নারী ক্রিকেটারদের অনুশীলন ক্যাম্প হয় সিলেটে। ক্যাম্পে অংশ নিতে সিলেট গিয়ে অনুশীলনের সময় নিজের পছন্দের ব্যাটটি ভেঙে যায় নারী দলের অধিনায়ক রুমানা আহমেদের। ব্যাকআপ হিসেবে আরও একটি ব্যাট ছিল। যেটা দিয়ে তিনি কালেভদ্রে খেলতেন। সেই ব্যাটটাও চুরি হয়ে যায় মিরপুরের ক্রীড়াপল্লী থেকে। শনিবার দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যেতে হবে নারী ক্রিকেটারদের। অথচ এই মুহূর্তে রুমানার ব্যাট নেই। বিষয়টা নিয়ে বড় দুশ্চিন্তায় পড়ে যান জাতীয় দলের এ অধিনায়ক। ব্যাট সমস্যার বিয়ষটি নিয়ে তিনি অনেকের সঙ্গে আলাপও করেছেন। কোন মারফতে ব্যাট ম্যানেজ করতে না পেরে অবশেষে জাতীয় দলের ওপেনার তামিম ইকবালের কাছ থেকে টাকার বিনিময়ে একটা ব্যাট কিনে নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। তামিম টাকার বিনিময়ে ব্যাট বিক্রি না করে নিজের পছন্দের ব্যাটটি রুমানাকে গিফট করে দেন। তামিম ইকবালের কাছ থেকে পাওয়া ব্যাট নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে যুগান্তরকে রুমানা বলেন, ‘তামিম ভাইয়ের সঙ্গে ব্যাট নিয়ে আলাপ হলে তিনি বলেছেন, আপনাদের কবে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যেতে হবে। আমি ওনাকে দিনক্ষণ বলে রাখি। উনি একটা ব্যাট নিয়ে এসে বললেন এটা আমার ম্যাচ ব্যাট, এটা নিয়ে আমি ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যেতে চেয়েছিলাম। আপনার যেহেতু ব্যাট নেই তো এটা নেন।’

রুমানা বলেন, ‘আমি ব্যাটটা টাকার বিনিময়ে কিনতে চেয়েছিলাম। উনি টাকার বিনিমিয়ে দিতে রাজি হনি। উনি আমাকে গিফট করে দেন। আসলে ওনার কাছ থেকে ব্যাট পেয়ে আমি অনেক আনন্দিত। আমার চেষ্টা থাকবে এই ব্যাট দিয়ে নিজের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলতে।’

দীর্ঘদিন জাতীয় দলের নেতৃত্ব সামলিয়েছেন সালমা খাতুন। এরপর নেতৃত্বভার দেয়া হয় জাহানারা আলমকে। এরপর ঘুরেফিরে নেতৃত্বের দায়িত্ব চলে আসে রুমানার কাঁধে। আসন্ন দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে বাংলাদেশ ৫টি ওয়ানডে এবং ৩টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে। টি-টোয়েন্টি দলের নেতৃত্ব থেকে রুমানাকে সরিয়ে দায়িত্ব দেয়া হয় সালমা খাতুনকে।

অধিনায়কের এই পালা বদল নিয়ে রুমানা বলেন, নেতৃত্ব তো আমি বোর্ডের কাছে চেয়ে নেইনি। ওনারা ভালো মনে করেছেন তাই আমাকে দিয়েছেন। এখন ওনাদের মনে হয়েছে অন্যকে দিলে ভালো হবে তাই দিয়েছেন। টি-টোয়েন্টি এবং ওয়ানডে ফর্মেটের জন্য দুজন অধিনায়ক হওয়ায় আমার মনে হয় ভালোই হয়েছে।

নিজের অধিনায়কত্ব প্রসঙ্গে রুমানা বলেন, অধিনায়ক থাকলে আমার ফিল্ডিং সাইডে করতে হয়। আর ব্যাটিং সাইডে তো আমি আমার নিজের মতোই খেলতে পারি। অধিনায়কত্ব করলে ব্যাটিংয়ে তা প্রভাব ফেলে না।

আফ্রিকা সফরে আপনার ব্যক্তিগত টার্গেট? আমি এর আগে আফ্রিকার সঙ্গে আমার ৭৫ রানের ইনিংস আছে। এবারের সফরে আমার লক্ষ্য আগের চেয়েও বড় ইনিংস খেলা। চেষ্টা থাকবে তামিম ভাইয়ের ব্যাট দিয়ে সেঞ্চুরি করার।