NEWSTV24
ভারতের প্রধানমন্ত্রী যেই হোক ইমরান খানের সঙ্গেই হবে প্রথম সাক্ষাৎ!
সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০১৯ ২২:০০ অপরাহ্ন
NEWSTV24

NEWSTV24

ভারতের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী যেই নির্বাচিত হোক, লোকসভা নির্বাচনের পর তার প্রথম সাক্ষাৎ হবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার। আগামী ১৪ এবং ১৫ জুন চীনের সাংহাইয়ে কো-অপারেশন সামিট অনুষ্ঠিত হবে। যেখানে ভারতের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন দেশের প্রধানদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এখানেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে ভারতের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর প্রথম বৈঠক হবে। এ জন্য ক্ষমতায় আসার পরই পাকিস্তান বিষয়ে কূটনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি ঠিক করতে হবে নয়াদিল্লির। চীনের সাংহাইয়ে ওই বৈঠক কতটা ফলপ্রসূ হবে,তা নির্ভর করবে পাকিস্তান বিষয়ে ভারতের বিদেশনীতির ওপর।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি পুলওয়ামায় ভারতীয় আধাসামরিক বাহিনীর কনভয়ে ভয়াবহ হামলার পর পাকিস্তানের সঙ্গে অনেকটা যুদ্ধে জড়িয়ে গিয়েছিল ভারত। ২৬ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তান সীমান্ত বালাকোটে ভারতের বিমান হামলায় বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদের ৩০০ জন নিহত হয়েছে বলে দাবি জানায় ভারত সরকার।

যদিও এ দাবির পক্ষে কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেনি নয়াদিল্লি। তবে এ ঘটনার পাল্টা জবাবে পাকিস্তানও ভারতের অভ্যন্তরে বোমা হামলা করে।

সেই পাক অভিযানের জবাবে ভারতীয় বিমান বাহিনীর কয়েকটি যুদ্ধবিমান পাকিস্তানের অভ্যন্তরে ঢুকলে ভারতের একটি যুদ্ধবিমানকে ভূপাতিত করে পাক সেনা। বিমানটির পাইলটকেও আটক করে তারা।

এরপর ভারতীয় বিমান বাহিনী পাকিস্তানের একটি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করেছে বলে দাবি করে মোদি সরকার। কিন্তু সেই অভিযানে কোনো এফ-১৬ যুদ্ধবিমান ব্যবহার করা হয়নি জানায় ইমরান খানের সরকার।

ভারতীয় যুদ্ধবিমান মিগ-২১ ভূপাতিত করার প্রমাণ হিসেবে পাক কারাগারে আটক সেই বিমান পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে ‘শান্তির বার্তা’ হিসেবে ফেরত পাঠায় পাকিস্তান।

কিন্তু পাক যুদ্ধবিমান এফ-১৬ ভূপাতিত করার দাবির পক্ষে কোনোই যুক্তি বা প্রমাণ দেখাতে পারেনি নরেন্দ্র মোদি।

মার্কিন সাময়িকী ‘ফরেন পলিসি’র প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, সম্প্রতি পাকিস্তানের কাছে বিক্রি করা সমস্ত এফ-১৬ যুদ্ধবিমান গুনে দেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। তারা সব কটি এফ-১৬ বিমান অক্ষত পেয়েছেন। সেখানে একটি যুদ্ধবিমানও কম পায়নি মার্কিন বিশেষজ্ঞরা।

সে অর্থে মোদি সরকার এতদিন পাক যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার যে দাবি করে আসছিল তার পুরোটাই ছিল মিথ্যা।

এর মধ্যেই নির্বাচন শুরুর একদিন আগে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিজেপি ক্ষমতায় এলে নয়াদিল্লির সঙ্গে শান্তি আলোচনা শুরু করার ভালো সুযোগ তৈরি হবে।

নির্বানের ঠিক আগমুহূর্তে ইমরানের এ কথায় উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে ভারতের রাজনৈতিক অঙ্গন। কথায় কথায় বিরোধীদের ‘পাকিস্তানি’ বলে আক্রমণ করা মোদি এবার বিরোধীদের তোপের মুখে পড়েছেন।

কংগ্রেস থেকে শুরু করে আম আদমি পার্টি এবং কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ ও মেহবুবা মুফতি সবাই মোদিকে আক্রমণ করেছেন।