NEWSTV24
‘তারা নিজেরাই নিজেদের মাইনাস করেছে’
রবিবার, ১৫ জুলাই ২০১৮ ২২:৪১ অপরাহ্ন
NEWSTV24

NEWSTV24

বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতিই তাদের (খালেদা-তারেক) মাইনাস করেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া দুর্নীতি না করলে তো দণ্ড হতো না। তাদের নেগেটিভ রাজনীতির ব্যর্থতাই তারা মাইনাস হয়েছে। এখানে সরকারের কিছু কারার নেই। রোববার বিকেলে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। এর আগে রোববার বেলা পৌনে ১২টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এমন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করে বলেন, কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এবং লন্ডনে নির্বাসিত দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে রাজনীতি থেকে দূরে সরানোর চেষ্টা হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে কাদের বলেন, তারা নিজেরাই তো নিজেদের মাইনাস করে ফেলেছে। দুর্নীতি না করলে তো আর দণ্ড হতো না। সাহস দেখাতে না পারা, এই ব্যর্থতাই তো তাদের মাইনাস করেছে। তাদের নেগেটিভ রাজনীতির যে ব্যর্থতা, সেই ব্যর্থতাই তাদের মাইনাস করেছে।

সরকার মাইনাস করবে কেন? সাত ধারা বাতিল করতে কি সরকার বাধ্য করেছে। খালেদা জিয়ার মামলার রায় ঘোষণার আট দিন আগে হঠাৎ করে রাতের অন্ধকারে তারা এক কলমের খোঁচায় তাদের গঠনতন্ত্র থেকে সাত ধারা উঠিয়ে দিয়েছে। সাত ধারাটা যেভাবে বাদ দিয়েছে এটা মধ্য রাতের ক্যু। এটা বিএনপির নিজেদের বিরুদ্ধে নিজেদের গঠনতন্ত্রের বিরুদ্ধে মধ্যরাতের ক্যু।

সাত ধারায় কী আছে তার বর্ণনা দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সাত ধারায় আছে- রাষ্ট্রপতির আদেশ নম্বর ৮, ১৯৭২ এর বলে কোনো বিএনপির কোনো কর্মী দণ্ডিত হলে নেতা হতে পারবেন না, এমপি হতে পারবেন না। কোনো ব্যক্তি উন্মাদ হলে বিএনপির কোনো কর্মী নেতা হতে পারবেন না, এমপি হতে পারবেন না। তারপর হচ্ছে যদি কোনো ব্যক্তি ব্যাংকে দেওলিয়া হয়, সামাজিক ভাবে দুর্নীতিবাজ হিসেবে পরিচিত হয়, তাহলে তিনি বিএনপির নেতা হতে পারবে না, এমপি হতে পারবেন না।

তিনি বলেন, এই ধারাটা তারা মধ্য রাতে উঠিয়ে দিয়েছে। তাহলে কে কাকে মাইনাস করেছে। তাদের এই আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত। তারা এখন আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ দল। তারা এখন সাত ধারা বাদ দিয়ে গঠনতন্ত্র আত্মস্বীকৃত দেওলিয়া দল।

খালেদা জিয়াকে ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে আসবে না তখন নির্বাচন কতটুকু গ্রহণযোগ্য হবে এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, বেগম জিয়ার জন্য বিএনপি নির্বাচনে আসবে না। আসবে কি আসবে না, এ নিয়ে বিএনপির নিজেদের মধ্যে মতভেদ আছে। কেউ আসতে চাইবে, কেউ চাইবে না। অক্টোবরের আগে বলা যাবে না, আসবে কি না। তাবে আমি এইটুকু বলবো নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী হবে। ইলেকশনের সময় স্রোতের মতো কারও জন্য অপেক্ষা করবে না, কোনো দলের জন্য কোনো নেতার জন্য ইলেকশন অপেক্ষা করবে না। ইলেকশন একটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া।

তিনি বলেন, পাকিস্তানের মতো দেশে দুর্নীতির দায়ে নওয়াজ শরিফ ও তার মেয়েকে দেশে ফেরার সঙ্গে-সঙ্গে গ্রেফতার করেছে। এটাই রাজনীতি। রাজনীতি করলে সাহস থাকতে হয়।

শহীদ মিনারে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর হমলায় ছাত্রলীগ জড়িত সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, ছাত্রলীগের বর্তমানে যেহেতু কোনো কমিটি নেই সুতরাং কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর যে হামলা হচ্ছে তা ছাত্রলীগের নাম ভাঙিয়ে অন্য কেউ করছে কি না তা পরিষ্কার নয়।

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ধৈর্য ধরার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী যে পদক্ষেপ নিয়েছেন তার প্রতি আস্থা রাখুন। প্রধানমন্ত্রী কথা দিলে কথা রাখেন। আপনারা একটু ধৈর্য ধরুন।

এ আন্দোলনের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার প্রসঙ্গে কাদের বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর যেটা বক্তব্য, ভাইস চ্যান্সেলরের বাড়িতে যে ঘটনাটি ঘটেছে, তা নারকীয় তাণ্ডব। সেই ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত তাদেরই কেবল গ্রেফতার করা হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপু মনি, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, বিএম মোজাম্মেল হক, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ , ত্রাণ ও কল্যাণ সম্পাদক সুজিত নন্দী রায়, কৃষি সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য এসএম কামাল হোসেন প্রমুখ।